সাজেদা হাসপাতালে ২৪ ঘন্টা স্বাস্থ্যসেবা

নিজস্ব প্রতিবেদক।

0 52

করোনা পরিস্থিতিতে যেখানে অনেক বেসরকারি হাসপাতাল বন্ধ রাখা হয়েছে, চিকিৎসাসেবা দিতে অপারগতা প্রকাশ করা হচ্ছে, সেখানে সকল বিভাগের রোগীদের ২৪ ঘন্টা স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছে কেরানীগঞ্জের সাজেদা হাসপাতাল। করোনা আতঙ্কে নানা জায়গায় রোগীরা হয়রানী হলেও এখানে মিলছে সুচিকিৎসা। বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক উপক্ষো করে এই হাসপাতালের ৩০ জন ডাক্তার, ৬০ জন নার্স ও ৭০ জন সেবাকর্মী দিনরাত পালা করে সাহসিকতার সঙ্গে সবধরনের রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।

সরেজমিন দেখা যায়, হাসপাতালে আগত রোগী ও স্বজনদের জন্য প্রবেশমুখে রাখা হয়েছে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা। এরপর নিরপত্তা রক্ষীদের কাছে থাকা হ্যান্ডসানিটাইজার দিয়ে হাত জীবানুমুক্ত করানো হচ্ছে। এছাড়াও হাসপাতালে প্রবেশে সবাইকে মাস্ক ব্যবহার ও সামাাজি দুরত্ব বজায় রাখতে নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে। এছাড়াও রোগীদের সঙ্গে আসা যানবাহনেও জীবানুনাশক ছিটিয়ে দিচ্ছে নিরাপত্তারক্ষীরা।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, সবধরনের চিকিৎসাসেবা দিলেও জ¦ও, ঠান্ডা, কাশি নিয়ে কোন রোগী আসলে তাকে আলাদাভাবে মনিটরিং করা হচ্ছে বিশেষ একটি কক্ষে। যদি করোনার মতো কোন উপসর্গ দেখা দেয় তাহলে উপেেজলা প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে। যদিও এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত কোন রোগী এখানে আসেনি। হাসপাতালটিতে এখন প্রতিদিন গড়ে ১৫০ জন রোগী স্বাস্থ্যসেবা নিচ্ছেন। যেটা আগে স্বাভাবিক সময়ে ছিল ২০০ জনের মতো। এখানে প্রসুতিকালীন সেবা, শিশু বিভাগ, মেডিসিন বিভাগ, চক্ষু বিভাগ, অর্থপেডিক্স, সার্জারী, প্যাথলজি, এক্সওে, আলট্র্রাসনোগ্রাফিসহ প্রায় সব বিভাগের কার্যক্রম চালু রয়েছে। এছাড়াও গুরুতর রাগীদের আনা নেয়ার জন্য ২৪ ঘন্টা এম্বুলেন্সের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে স্বামীকে নিয়ে হাসপাতালে প্রসুতিসেবা নিতে এসেছেন চুনকুটিয়া এলাকার গৃহবধু সালমা আক্তার। ওই গৃহবধুর স্বামী আলমাছ হোসেন বলেন, আমার স্ত্রীর ডেলিভারীর সময় হয়েেেছ। শুনেছি বেসরকারি হাসপাতাল ক্লিনিক সব বন্ধ। এ অবস্থায় বিপদে পড়ে যাই। কোথায় যাবো? কি করবো? বুজতে পারছিলাম না। এ অবস্থায় পরিচিতি একজনের কাছ থেকে জানতে পারি জিনজিরায় অবস্থিত সাজেদা হাসপাতালটি বন্ধ হয়নি। নিয়মিত তারা স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছে। তাই আজ সকালে স্ত্রীকে নিয়ে এখানে চলে এসেছি।

সাজেদা হাসপাতালের সিনিয়র ম্যানেজার মো: শাহজালাল ফরাজী বলেন, প্রতিষ্ঠার পর থেকে এই হাসপাতালে স্বল্পব্যয়ে মানসম্পন্ন চিকিৎসাসেবা দেয়া হচ্ছে। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতেও আমরা সর্বোাচ্চ সেবা দেয়ার চেষ্টা করছি। এজন্য এখানকার ডাক্তার, নার্সসহ সকল স্বাস্থ্যকর্মীকে ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরজ্ঞাম দেয়া হয়েছে। ২৪ ঘন্টা হটলাইন নাম্বার (০১৭৭৭৭৭২৫০০) চালু রয়েছে। জরুরী প্রয়োজনে ফোন দিয়ে সেবা গ্রহন করতে পারবেন।

তিনি আরো বলেন, বর্তমান কঠিন পরিস্থিতিতে আমাদের কাজে উৎসাহ ও সহযোাগিতা করার জন্য কেরানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও মহোদয়, জিনজিরা ইউপি চেয়ারম্যান, এনএসআইসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা ও স্থানীয় সাংবাদিকদের প্রতি আমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.